মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

সাধারণ তথ্য

উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তার কার্যালয়,কুড়িগ্রাম সদর গণপ্রজাতন্রী বাংলাদেশ সরকারের যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রনালয়াধীন একটি প্রতিষ্ঠান। প্রতিষ্ঠানটির মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে দেশের বেকার যুবদের  কর্মসংস্থান ও আত্ন-কর্মসংস্থানে নিয়োজিত করে স্বাবলম্বী করা।একই উদ্দেশ্যে কুড়িগ্রাম সদর উপজেলায় ১৯৯৭ সালে এর কার্যক্রম শুরু হয়।এ কার্যালয়ের মাধ্যমে বেকার যুবদের স্বল্প মেয়াদী ও দীর্ঘমেয়াদী বিভিন্ন বিষয়ে প্রশিক্ষণ দিয়ে দক্ষ করা হয়। অতঃপর আত্ন-কর্মসংস্থান মূলক প্রকল্পে ঋণ সহযোগিতা সহ প্রকল্প বাস্তবায়নে সহযোগিতা প্রদান করা হয়। উদ্যোক্তা তৈরি,যুব সংগঠন তৈরি সহ নানাবিধ কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা হয়।এছাড়া, প্রতিষ্ঠানটির মাধ্যমে আত্ন-কর্মসংস্থানমূলক নানাবিধ কার্যক্রম বাস্তবায়ন হয়ে থাকে।

 

  উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তার কার্যালয় কুড়িগ্রাম সদর  কতক এ যাবত কুড়িগ্রাম সদর উপজেলায় রাজস্ব খাতে স্বল্প-মেয়াদী (০১-৩০ দিন) অপ্রাতিষ্ঠানিক  বিভিন্ন প্রশিক্ষণ কোর্সে অক্টোবর/১৬খ্রিঃ পর্যন্ত ২৯৭৫ জন যুব ২০৯৮ যুব মহিলা সহ মোট ৫০৭৩ জনকে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। প্রশিক্ষনত্তর আত্ন-কর্মসংস্থান মূলক প্রকল্পে মোট ৬৪৬ জনকে ৯৮,৬৮০০০/= টাকা ঋণ প্রদান করা হয়।এ খাতে আত্নকর্মী সংখ্যা-৩৯৫৬ জন।

 

উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তার কার্যালয় কুড়িগ্রাম সদর কতক এ যাবত কুড়িগ্রাম সদর উপজেলায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর অগ্রাধিকারমুলক ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসূচি বাস্তবায়িত হয়। এ কর্মসূচির আওতায় অত্র উপজেলার ৩০৪৭ জন বেকার যুব ও ১৮০৯ বেকার যুব মহিলা সহ মোট ৪৮৫৬ জন বেকার যুবকে সংযুক্তি দেয়া হয়। সংযুক্তি প্রাপ্ত হয়ে তারা বিভিন্ন সরকারী-বেসরকারী দপ্তরে ২ বৎসর অস্থায়ীভাবে কর্মরত থাকে। উল্লেখ্য,সংযুক্তি পূর্বে তাদেরকে ০৩ মাসের মৌলিক ও বিশেষ  প্রশিক্ষন দেয়া হয়। প্রশিক্ষনকালীন সময়ে তাদেরকে দৈনিক ১০০/= টাকা প্রশিক্ষনভাতা ও সংযুক্তিকালীন সময়ে তাদেরকে দৈনিক ২০০/= টাকা বা মাসিক ৬০০০/=টাকা  ভাতা দেয়া হয়। এ কর্মসূচির মাধ্যমে অত্র এলাকায় ব্যাপকভাবে আর্থ- সামাজিক উন্নয়ন সাধিত হয়।পাশাপাশি বিপুল সংখ্যক যুবর কর্মসংস্থান সৃষ্টি হয়। ২ বৎসর অস্থায়ীভাবে কর্মরত থাকাকালীন যুবরা সরকারী-বেসরকারী দপ্তরের কার্যক্রম বিষয়ে অভিজ্ঞতা লাভ করে। বর্তমানে  উল্লেখযোগ্য সংখ্যক যুব বিভিন্ন দপ্তরে/ প্রতিষ্ঠানে চাকুরি করছে। এ প্রকল্পের সুবিধাভোগীদের ৮০%-৯০% যুব বর্তমানে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে কর্মসংস্থানে লিপ্ত রয়েছে।

 

দারিদ্র দুরীকরনের লক্ষে “উত্তরবঙ্গের ০৭টি জেলায় বেকার যুবদের   কর্মসংস্থান ও আত্ন-কর্মসংস্থান মূলক  একটি পরিবারভিত্তিক  কর্মসূচি বর্তমানে চলমান রয়েছে। ইতিমধ্যে এ প্রকল্পের মাধ্যমে (০১-১০ দিন) অপ্রাতিষ্ঠানিক  বিভিন্ন ০৫টি প্রশিক্ষণ কোর্সে নভেম্বর/২০১৬ পর্যন্ত ৪২৬ জন যুব ৩৯৯ যুব মহিলা সহ মোট ৮২৫ জনকে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। প্রশিক্ষনত্তর আত্ন-কর্মসংস্থান মূলক প্রকল্পে  এ পর্যন্ত মোট ২১৮ জনকে ৬১১৪০০০/= টাকা ঋণ প্রদান করা হয়েছে।প্রকল্পটির মাধ্যমে অনেক যুব পরিবার কর্মসংস্থান করতে সক্ষম হয়েছে।

 

   নেটওয়ার্কিং কর্মসূচি নামে একটি কর্মসূচি বাস্তবায়িত হচ্ছে। বিভিন্ন সংগঠনের মধ্যে আন্তঃ যোগাযোগ তৈরী ও নির্ধারিত ০২ টি সংগঠনের মাধ্যমে এর কারজক্রম চলছে।নেট ওয়ার্কিং কর্মসূচির আওতায় ০২ টি সংগঠনের   ২২৩ জন সদস্যকে কম্পিউটার বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। এছাড়া, ০২ টি সংগঠনের     মাধ্যমে কম্পিউটার বিষয়ে স্বল্পকালীন প্রশিক্ষণ/অবগত করা হয়।                                      

 এ প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে সংগঠন তালিকাভুক্ত/রেজিস্ট্রেশনের জন্য প্রস্তাব জেলা কার্যালয়ে প্রেরন করা হয়। এযাবৎ কুড়িগ্রাম সদর উপজেলায় মোট ৪৫টি সংগঠন তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। সংগঠন সমুহকে সক্রিয়করণ ও সামাজিক বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে শরীক করার জন্য কাজ করে যাচ্ছে।

 সংগঠন সমুহকে প্রকল্পভিত্তিক অনুদান প্রদানের প্রস্তাব অত্র কার্যালয় থেকে জেলা কার্যালয়ে প্রেরন করা হয়। এছাড়া, সফল আত্নকর্মী যুবকে জাতীয় পুরস্কারের জন্য প্রাথমিকভাবে মনোনীত করে প্রস্তাব অত্র কার্যালয় থেকে জেলা কার্যালয়ে প্রেরন করা হয়।


Share with :

Facebook Twitter